বাংলা লিপি

১। ধ্বনির (Sound বা আওয়াজ) লিখিত রূপই লিপি বা Script । আমরা মুখে যেসব ধ্বনি উচ্চারণ করি লিপি সেসব ধ্বনির চিত্ররূপ। অর্থাৎ বাগ্ ধ্বনিকে যে চিহ্নের সাহায্যে চিত্ররূপ দেয়া হয় তাকে লিপি বলে। ধ্বনি আমরা কানে শুনি, লিপি বা বর্ণ আমরা চোখে দেখি। লিপিগুলোই ক্রমান্বয়ে নানা পরিবর্তনের মাধ্যমে আধুনিক বর্ণে রূপ লাভ করেছে।

২। ভারতীয় অঞ্চলের সব লিপিই ভারতের বিভিন্ন পাহাড়ের গুহায় অঙ্কিত চিত্রমালা থেকে সৃষ্টি হয়েছে। অর্থাৎ চিত্র থেকে কেটে কেটে লিপি বা বর্ণ তৈরি করা হয়েছে। ভারতীয় চিত্রমালা থেকে দুই ধরনের লিপির উদ্ভব ঘটে। যথা-
(ক) ব্রাহ্মী লিপি ও
(খ) খরোষ্ঠী লিপি

৩। বাংলা লিপিসহ ভারতের সকল লিপির জন্ম হয়েছে ব্রাহ্মী লিপি থেকে। ব্রাহ্মী লিপির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য হলো – এ লিপিতে বাম থেকে ডানে লেখা হয়। কেউ কেউ ব্রাহ্মী লিপিকে ভারতের মৌলিক লিপি বলে মনে করেন। অন্যদিকে খরোষ্ঠী লিপিতে ডান থেকে বামে লেখা হয়।

৪। খ্রিস্টপূর্ব তৃতীয় শতাব্দীতে সম্রাট অশোক তার অধিকাংশ কর্ম ব্রাহ্মী লিপিতে লেখান। মহাস্থানগড়ে প্রাপ্ত লিপির সঙ্গে সম্রাট অশোকের সময়ের লিপির সাদৃশ্য পাওয়া গেছে।

৫। অষ্টম শতাব্দীতে ব্রাহ্মী লিপির তিনটি শাখার সৃষ্টি হয়েছে –
(ক) পশ্চিমা লিপি বা সারদা লিপি
(খ) মধ্যভারতীয় লিপি বা নাগর লিপি
(গ) পূর্বী লিপি বা কুটিল লিপি।

৬। ব্রাহ্মী লিপির এ পূর্বী বা কুটিল লিপি থেকে বাংলা লিপির জন্ম হয়েছে। বাস্তবিকই বাংলা লিপির কোথাও অর্ধমাত্রা,কোথাও পূর্ণমাত্রা কোথাও মাত্রাহীন এবং বর্ণগুলো বিশেষত যুক্তাক্ষরগুলো খুবই জটিল বা কুটিল।

৭। সেন যুগে বাংলা লিপির গঠনকার্য শুরু হলেও পাঠান যুগে তা স্থায়ীরূপ লাভ করে।

৮। হাতের লেখার পাশাপাশি লিপির সাথে মুদ্রণের রয়েছে গভীর সম্পর্ক। ক্রমবর্ধমান কম্পিউটার ব্যবহার হাতের লেখার জায়গা দখল করে বলে তাও মুদ্রণমুখী হয়ে উঠেছে। চার্লস উইলকিন্সের সহযোগিতায় পঞ্চানন কর্মকার ও মনোহর কর্মকার মুদ্রণ উপযোগী বাংলা হরফ তৈরি করেন। যার প্রথম প্রয়োগ হয় ১৭৭৮ সালে প্রকাশিত হ্যালহেডের ‘ A Grammar of the Bengal Language’ নামক ব্যাকরণ গ্রন্থে।

৯। এরপরে বাংলা লিপির গুরুত্বপূর্ণ সংস্কার করেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর তার ‘বর্ণপরিচয়’ (১৮৫৫) গ্রন্থে।

১০। নিচে সংযুক্ত চিত্রটি বুঝার চেষ্টা করুন।

বাংলা লিপি

সবাই ঘরে থাকুন,নিরাপদে থাকুন। ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের উপকারে পোস্টটি শেয়ার করুন।

আফছার উদ্দিন জুয়েল
৩৩ তম বিসিএস (সাধারণ শিক্ষা)

 

এরকম আরও তথ্যবহুল পোস্ট পেতে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন এখানে ক্লিক করে

পোস্টটি শেয়ার করে টাইমলাইনে রেখে দিন তাহলে পরবর্তীতে সহজেই খুঁজে পাবেন।

আমাদের ফেসবুক গ্রুপে সংযুক্ত আছেন? না থাকলে আপনার ফেসবুক এপ খুলে ‘BCS Corner‘ লিখে এখনই খোঁজ লাগান। প্রস্তুতির জন্য কতটা কাজে আসতে পারে যোগ না দিলে সম্ভব না জানা!